স্বাস্থ্য

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চতুর্থ শ্রেণি সরকারী কর্মচারী সমিতির আলাদা ইউনিট গঠনের সিদ্ধান্ত।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চতুর্থ শ্রেণি সরকারী কর্মচারী সমিতির আলাদা ইউনিট গঠনের সিদ্ধান্ত।

সাইফুল ইসলাম তরফদার: ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বাংলাদেশ চতুর্থ শ্রেণি সরকারী কর্মচারী সমিতির আলাদা শাখা গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সমিতির সাধারণ সভায় কর্মচারীদের সংখ্যা গরিষ্ঠ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে সর্বসমর্থভাবে এ সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। সেই সাথে আগামী ৯০ কার্য দিবসের মধ্যে নির্বাচন করে নতুন কমিটি গঠনেরও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিদ্ধান্ত মতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ও ময়মনসিংহ নার্সিং কলেজের কর্মচারীদের বাদ দিয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, এসকে হাসপাতাল, মডেল ফ্যামিলি প্ল্যানিং ও পরমানু চিকিৎসা কেন্দ্রে আলাদা ইউনিট কার্যকর হবে। বাংলাদেশ চতুর্থ শ্রেণি সরকারী কর্মচারী সমিতি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল শাখার নেতাদের সাথে কথা বলে জানাযায়, একটা সময় মেডিকেল কলেজ শাখা ও হাসপাতাল শাখায় আলাদা ইউনিটে সংগঠন ছিল। ৩৫-৪০ বছর আগে সেই সময়ের বিবেচনায় মেডিকেল কলেজের কর্মচারীদের সুবিধার্থে দু
ফুলবাড়িয়ায় করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন ডক্টর মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম।

ফুলবাড়িয়ায় করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিলেন ডক্টর মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম।

সাইফুল ইসলাম তরফদারঃ ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে করোনার দ্বিতীয় ডোজ এর টিকা নিলেন বাংলাদেশ কাস্টমস এন্ড ভ্যাট কমিশনারেট ঢাকা ( উত্তর) এর অতিরিক্ত কমিশনার ডক্টর মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম। দ্বিতীয় ডোজের ভ্যাকসিন নেওয়ার পর ডক্টর মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়ে সকলকে সচেতন থাকার আহ্বান জানান। রবিবার (১৬ মে) বেলা ১১ টায় করোনা সেকেন্ড ডোজ ভ্যাকসিন নেয়ার সময় তিনি বলেন, ধন্যবাদ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এরকম সুযোগ করে দেওয়ার জন্য। বঙ্গবন্ধু কন্যার দক্ষ নেতৃত্বের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে । নিজেরা যদি সচেতন না হই আমরা, এই পরিস্থিতি দিনের পর দিন খারাপ হতেই থাকবে।বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে বাংলাদেশ এই টিকা আমদানি করেছে। ডক্টর মুহাম্মদ তাজুল ইসলাম আরো বলেন, অন্যান্য উপজেলা থেকে আমাদের ফুলবাড়িয়া অনেক প
মচিম হাসপাতালের নার্স কমকর্তা আনোয়ারের ইফতার মাহফিল।

মচিম হাসপাতালের নার্স কমকর্তা আনোয়ারের ইফতার মাহফিল।

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, বাংলাদেশ নার্সেস  এসোসিয়েশন ( বিএন এ) কাযালয়ে  নার্স কমকর্তা আনোয়ারুল হক এর সৌজন্যে ইফতার মাহফিল দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। বৃহস্পতিবার (বি এন এ) এর কাযালয়ে ইফতার মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন মচিম হাসপাতালের (বিএনএ)  সভাপতি মোঃ লুৎফর  রহমান,মজিবুর রহমান,  ইসমাইল হোসেন,রফিকুল ইসলাম সিদ্দিকী,  নুরুল ইসলাম  উজ্জ্বল,আব্দুল মান্নান, মনজিল খান, আব্দুল মজিদ, সুমন খান,সারোয়ার হোসেন,মাহমুদ আলম,শফিকুল ইসলাম,আতিকুল ইসলাম ,মিনহাজুল আবেদীন ,হাসান,শফিক  প্রমুখ।##
টিকার কোন পাশ্ব প্রতিক্রিয়া নেই- আপনি নিন।।বিএনপির নেতা আখতারুল আলম ফারুক।।

টিকার কোন পাশ্ব প্রতিক্রিয়া নেই- আপনি নিন।।বিএনপির নেতা আখতারুল আলম ফারুক।।

ফুলবাড়িয়া প্রতিনিধি:   করোনা ভাইরাসের (ভ্যাকসিন) প্রথম ডোজ টিকা গ্রহণ করেছেন ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক আখতারুল আলম ফারুক। ২৫শে (এপ্রিল) রবিবার ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তিনি প্রথম বার করোনা টিকার ডোজ গ্রহণ করেছেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বিধান চন্দ্র দেবনাথ, উপজেলা বিএনপির সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও সাবেক চেয়ারম্যান শাজাহান সিরাজ (সাজু), উপজেলা সাবেক ছাত্রনেতা আতাহার আলী (কাজল), প্রভাষক কামরুজ্জামান, সানি, রুবেল, শফিকুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় তিনি ফুলবাড়িয়া বাসীর উদ্দেশ্যে বলেন-করোনা থেকে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে আমি টিকা গ্রহণ করেছি। এর আগেও অনেকেই টিকা নিয়েছেন,পর্যায়ক্রমে সকলেই টিকা গ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে। টিকা নিয়ে সংশয়ের কোনো কারণ নাই জানিয়ে তিনি নির্ভয়ে সকলকেই টিকা গ্রহণের আহ্বান করে বলেন-আমি টিকা গ্রহণ করেছি, টিকা
যেকোন বয়সের মানুষের হাম রুবেলা হতে পারে- ডা: বিধান

যেকোন বয়সের মানুষের হাম রুবেলা হতে পারে- ডা: বিধান

  সাইফুল ইসলাম তরফদার: শিশু ছাড়াও যেকোন বয়সের মানুষের হাম রুবেলা হতে পারে। তবে শিশুদের মধ্যে হাম রুবেলার প্রকোপ বেশি। জটিলতা এবং মৃত্যু বেশি দেখা দেয় শিশুদের। তাই হাম রুবেলা হতে মুক্তি পেতে নিয়মিত টিকাদানের কোন বিকল্প নেই। হাম রুবেলা জটিলতার মধ্যে নিউমনিয়া, অপুষ্টি, অন্ধত্ব, ডায়েরিয়া ও বধিরতা অন্যতম। ৯মাস থেকে শুরু করে ১০ বছরের কমবয়সী সকল শিশুকে টিকা নিতে হবে। গতকাল রবিবার সকালে ফুলবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন পরিদর্শনকালে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা: বিধান চন্দ্র দেবনাথ এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: হারুন আল মাকসুদ, মেডিকেল অফিসার ডা: জয়ন্ত দেবনাথ, মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (ইপিআই) এস এম হাসমত আলী, স্বাস্থ্য পরিদর্শক (ইনচার্জ) আ: মান্নান, এইচএ হালিমা খাতুন, আ: কাদের প্রমুখ।
মেদ ঝরাতে নিয়মিত কাঁকরোল খান

মেদ ঝরাতে নিয়মিত কাঁকরোল খান

কাঁকরোল। ছোট কাঁঠালের মতো দেখতে কাঁটা কাঁটা সবুজ রঙের একটি সবজি। এটি তরকারি, ভাজি বা সিদ্ধ করে ভর্তা হিসেবে খাওয়া যায়। এতে প্রচুর ভিটামিন, মিনারেল, ফাইবার, কার্বোহাইড্রেট, অন্টিঅক্সিডেন্ট, লুটেইন, জেনান্থিন থাকে, যা স্বাস্থের জন্য অনেক উপকারী। বিশেষরজ্ঞরা বলছেন, কাঁকরোলে টমেটোর চেয়ে ৭০ গুণ বেশি লাইকোপিন, গাজরের চেয়ে ২০ গুণ বেশি বিটা ক্য়ারোটিন, ভুট্টার চেয়ে ৪০ গুণ বেশি জিয়াজেন্থিন ও লেবুর চেয়ে ৪০ গুণ বেশি ভিটামিন সি থাকে। ফলে নিয়মিত কাঁকরোল খেলে অনেক ভালো থাকবেন। আসুন জেনে নেয়া যাক কাঁকরোলের কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা : ১. শরীরে ভিটামিন সি’র পরিমাণ কম থাকলে ফ্যাট বার্নিং কম হয়। তাই আপনি যদি ওজন কমাতে চান তাহলে নিয়মিত কাঁকরোল খান। কারণ, কাঁকরোলে ভিটামিন সি থাকে, যা মেদ ঝরাতে সাহায়তা করে। ২. নার্ভাস সিস্টেমের ওপর প্রভাব ফেলে কাঁকরোল। এতে সেলেনিয়াম, মিনারেল, ভিটামিন থাকে, যা বিষন্নত

কোটি কোটি মানুষের জীবন কেড়েছে যেসব ভাইরাস-ব্যাকেটেরিয়া

বিশ্বজুড়ে এখন আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে প্রাণঘাতী এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগীর সন্ধান পাওয়া যায়। এরপর থেকে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। এ পর্যন্ত চীনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১৩ জনে। এছাড়া এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৯০০০ ছাড়িয়ে গেছে। মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস মোকাবিলায় বৈশ্বিক জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তবে করোনাভাইরাস বিশ্বে যেমন আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে, তার চেয়ে বেশি আতঙ্ক নিয়ে এসেছিল কয়েকটি রোগ। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- ইবোলা, এইচআইভি/এইডস, কলেরা, ইনফ্লুয়েঞ্জা, প্লেগ, বসন্ত, যক্ষ্মা ও ম্যালেরিয়া। সারা বিশ্বে কয়েকশ কোটি মানুষ এসব রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন এবং এখনও আক্রান্ত হচ্ছেন। ইবোলা২০১৪ সালে বিশ্বে এক মূর্তিমান আতঙ্কের নাম হয়ে দাঁড
হোমিওপ্যাথিতে  হেপাটাইটিস চিকিৎসা

হোমিওপ্যাথিতে  হেপাটাইটিস চিকিৎসা

ডা.মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদঃ হেপাটাইটিস বলতে যকৃতের প্রদাহ (ফুলে যাওয়া) বোঝায়। ভাইরাস ঘটিত সংক্রমণ বা অ্যালকোহলের মত ক্ষতিকারক পদার্থের কারণে ঘটা যকৃতের একটি রোগ। হেপাটাইটিস অল্প কিছু উপসর্গসহ বা কোনো উপসর্গ ছাড়াই  ঘটতে পারে।  তবে বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে জন্ডিস, এনরেক্সিয়া (ক্ষুধমান্দ্য) ও অসুস্থতাবোধ এর লক্ষণ বা উপসর্গ। দুধরণের হেপাটাইটিস দেখা যায় : তীব্র ও দীর্ঘস্থায়ী। তীব্র হেপাটাইটিস ৬ মাসেরও কম স্থায়ী হয়, অন্য দিকে দীর্ঘস্থায়ী হেপাটাইটিস দীর্ঘ দিন ধরে চলতে থাকে। মূলত হেপাটাইটিস ভাইরাসের কারণে এই রোগটির সূত্রপাত, তাছাড়া  অ্যালকোহল, নির্দিষ্ট কতগুলো ওষুধ, শিল্প-জৈব দ্রাবক এবং উদ্ভিদের টক্সিক জাতীয় পদার্থের কারণে এই রোগটি ঘটে,আজ হেপাটাইটিস নিয়ে কলাম লিখেছেন,বাংলাদেশের বিশিষ্ট হোমিও গবেষক ডা.এম এ মাজেদ, তিনি তার কলামে লিখেন... বর্তমানে প্রায় ২৫৭ মিলিয়ন মানুষ হেপাটাইটিস “বি” ও

হোমিওপ্যাথিতে  হৃদরোগ নিরাময়

ডা.মুহাম্মাদ মাহতাব হোসাইন মাজেদঃ আমাদের দেশের মানুষ যে দুইটি রোগে চিকিৎসা করতে গিয়ে পথের ভিকারীতে পরিণত হয় তার একটি হলো ক্যান্সার, অন্যটি হলো হৃদরোগ বা হার্ড ডিজিজ।অথচ অন্যান্য জটিল রোগের মতো হৃদরোগের চিকিৎসাতে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা শ্রেষ্ঠত্বের দাবীদার। বিভিন্ন শ্রেণীর লোকেরা তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থের কারণে প্রতিহিংসা বসত হোমিওপ্যাথি সম্পর্কেে নানা রকমের বদনাম ছড়ায়, তার মধ্যে একটি বড় অপপ্রচার হলো হোমিওপ্যাথি ঔষধ দেরিতে কাজ করে। অথচ হাই ব্লাড প্রেসার, ডায়াবেটিস,মাইগ্রেন  ,হৃদরোগ,কোষ্ঠকাঠিন্য,গ্যাস্টিক,আলসার সহ অনেক রোগের জন্য মানুষেরা ৫০ বছর ও এলোপ্যাথি ঔষধ খেয়ে পুরোপুরি রোগ মুক্ত হতে পারে না,দূর্ভাগ্যজনক হলেও তারপরে ও কেউ বলে না যে, এলোপ্যাথি ঔষধ বিলম্বে কাজ করে। হোমিওপ্যাথি সম্পর্কে প্রচলিত বদনামগুলির মার্কেট পাওয়ার জন্য একটি মূল কারণ হলো নাম
error: Content is protected !!